Archive for ‘অবাক পৃথিবী’

মে 27, 2018

“বদল আল এয়ানত” : মওদুদী জামাতের বিকৃত যৌনাচারের রাজনৈতিক ফতোয়া

আবদুল্লাহ আরাবী:  জামায়াতে ইসলামীতে সদস্যদের মাসিক চাঁদাকে এয়ানত বলা হয়। কিন্তু জামায়াতের কোনো সদস্যের যদি মৃত্যু হয় কিংবা কারাদণ্ড হয় বা সংসারের ব্যয়ভার বহন করতে অক্ষম হয়, সেক্ষেত্রে সংশ্লিষ্ট শাখা সেই পরিবারের ভরণপোষণ করে। শাখা আমীর বা আমীরের অনুমতিতে অন্য কোনো সদস্য এ দায়িত্ব পালন করতে পারে। এটুকুতে সীমাব্ধ থাকলে আপত্তির পরিবর্তে প্রশংসিত হতো। কিন্তু সাহায্যকারী/দায়িত্বগ্রহণকারী নেতা অনুপুস্থিত বা সাংসারিক ব্যয়ভার বহনে অক্ষম নেতা বা কর্মীর স্ত্রীকে ভোগ করবে, উপরন্তু তার গর্ভে অন্তত একজন সন্তানের জন্ম দিবে এ উদ্ভট ফতোয়ার নাম দেয়া হয়েছে “বদল আল এয়ানত”। এটি জাহেলি যুগে প্রচলিত ছিল।

মওদুদী তার অনুসারীদের বহু সন্তান জন্ম দিতে অনুপ্রাণিত করতো একথা সকলেই অবগত। তার উদ্দেশ্য ছিল সন্তান জন্মদানের মাধ্যমে নিজ দলের ক্রমবিকাশ। দলীয় কার্যক্রম শুরুর পরই মওদুদীকে ইসলাম বিরোধী আখ্যা দিয়ে মাওলানা আমীন আহসান ইসলাহী, ড. ইসরার আহমেদসহ ইসলাম সম্পর্কে জ্ঞান আছে এমন ব্যক্তিগণ দল ত্যাগ করে। তাঁরা মওদুদী ও জামায়াত সম্পর্কে শরীয়তগত সমালোচনা করেন। বলা হয়, জামায়াতে ইসলামী-ই পৃথিবীতে একমাত্র সংগঠন যার প্রতিষ্ঠাতা সাধারণ সম্পাদকসহ প্রতিষ্ঠাকালীন সকল সদস্যই পরবর্তীতে উক্ত সংগঠন ত্যাগ করেছিলেন।

মূলত “বদল আল এয়ানত”কে কেন্দ্র করে সর্বশেষ দল ত্যাগ করেন মাওলানা মনজুর নোমানি। তিনি যখন আশির দশকে মওদুদীর বিকৃত যৌনাচার প্রথা বদল আল ইয়ানত সম্পর্কে মুখ খোলে তখন পাকিস্তান ছাড়াও মিশর ও তুরস্কেও আলোড়ন সৃষ্টি হয়। কিন্তু পাকিস্তানের তৎকালীন সামরিক জান্তা জিয়াউল হকের সরাসরি হস্তক্ষেপে নোমানি রচিত “মাওলানা মওদুদীর সাথে সাহচর্যের ইতিবৃত্ত” গ্রন্থের সংশোধিত সংস্করণ প্রকাশ করা হয়। মানহানি মামলা, রাষ্ট্র কর্তৃক হুমকি এবং জামায়াতের দলীয় নেতারা এ নিয়ে মুখ না খোলায় তার করার কিছু ছিল না। তাই পাকিস্তান সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায় ক্ষোভ ও ঘৃণা প্রশমন করে সে যাত্রায় জামায়াতে ইসলামী রক্ষা পায়।

বদল আল এয়ানতের নেপথ্যে মার্গারেট মাসকাস নামে এক নারীর ভূমিকা রয়েছে। সেই মহিলা যুক্তরাষ্ট্রে কয়েকজন শেতাঙ্গ কর্তৃক ধর্ষিত হওয়ার পর ১৯৫৭ থেকে ৫৯ সাল পর্যন্ত মানসিক চিকিৎসাধীন ছিলেন। সিআইএর আমন্ত্রণে মওদুদী যুক্তরাষ্ট্র গমন করলে মার্গারেটের সাথে মওদুদীর অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এক পর্যায়ে সে পাকিস্তানে চলে আসে এবং ইসলাম গ্রহণ করে মরিয়ম জামিলা নাম ধারণ করে মওদুদীর বাসায় বসবাস শুরু করে। এ নিয়ে পারিবারিক কলহ এবং নানামুখী সমালোচনার কারণে মওদুদীর ছাপাখানার কর্মচারী মোহাম্মদ ইউসুফ খানের সাথে বিবাহ দেয়া হয়। মরিয়ম জমিলা ইসলাম কায়েমে সশস্ত্র সংগ্রাম নিয়ে কয়েকটি গ্রন্থ রচনা করেছে। জামিলাকে বিবাহ করার কারণে ছাপাখানার কর্মচারী ইউসুফ জামাতে ইসলামীর অন্যতম নেতায় পরিণত হয়। ধারণা করা হয় মরিয়ম জামিলাকে ভোগ করা শরীয়তসম্মত করতেই বদল আল এয়ানত ধারণার সূত্রপাত এবং ইউসুফ-জামিলার পাঁচ সন্তানের মধ্যে একজনের চেহারা হুবহু ফারুক মওদুদীর মতো।

সুন্নী মতাদর্শের সকল দলই যার বিরোধী সেটি হচ্ছে জামায়াতে ইসলামী। ওলামায়ে দেওবন্দ, কওমী ও সুফিবাদী সকলেই মওদুদীকে কাফের ফতোয়া দিয়েছে। মওদুদী জামাতকে খারেজি ও পথভ্রষ্ট বলে ফতোয়া দিয়েছে নাসিরউদ্দিন আলবানিসহ আহলে হাদিস বা সালাফি আলেম-ওলামাগণ। অনেকে বলেন, জামাত হচ্ছে শিয়া মতাদর্শের একটি শাখা যারা শুধুমাত্র রাজনৈতিক ফায়দার জন্য সুন্নী বলে পরিচয় দেয়। লক্ষণীয় বিষয় হচ্ছে কোনো সুন্নি আলেম-ওলামা শিয়াদের রেফারেন্স ব্যবহার না করলেও মওদুদী তাদেরকে অনুসরণীয় হিসেবে গণ্য করে। তার লেখা তাফহীমুল কোরআন ব্যাখ্যায় ব্যবহার করা হয়েছে বাইবেলের সূত্র। অথচ সকল আলেমরা একমত যে বাইবেল মূল ফর্মে নেই।

প্রকৃতপক্ষে জামায়াতে ইসলামী একটি নতুন ধর্ম যার সৃষ্টি করেছে সিআইএ ও মোসাদ। ১৪শ বছরে যে ব্যাখ্যা কোন আলেম দেননি, যে মতবাদের সাথে ইসলামের মিল রয়েছে শুধু নামমাত্র, যে মতবাদে হুকুমতে ইলাহি ভাবধারায় ইসলামের মূল ভিত্তিকে যে পরিবর্তন করে দিয়েছে, যার মতে নামাজ, রোজা ট্রেনিংমাত্র মূল লক্ষ ক্ষমতা দখল, সেটি নতুন ধর্ম ছাড়া আর কিছুই হতে পারে নি। এ কারণেই যা কোরআন হাদিসের আলোচনা বলে পরিচিত হওয়ার কথা তাকে বলা হয়েছে মওদুদী সাহিত্য। এছাড়া মওদুদী সকল নবী-রাসুল ও সাহাবায়ে কেরামের সমালোচনা করেছে তার মূল লক্ষ্য ছিল সকলকে দোষী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করে নিজেকে মূল ব্যক্তিতে পরিণত করা। অবশ্য এক্ষেত্রে জামাত সফল কারণ জামাত-শিবির শুধু মওদুদীকেই নয়, তাদের নেতাদেরও নিস্পাপ বলে গণ্য করে। পীরবাদের সমালোচনা করলেও তারা সম্পূর্ণভাবে মওদুদী কেন্দ্রিক। এমন কি রাসুলের বিরুদ্ধে লেখার সমালোচনা করা হলে জামাতের পক্ষ থেকে যুক্তি দেয়া হয় ওমুক আলেম এই কথা বলেছে।

জামায়াতে ইসলামী নিজেদের যুক্তরাষ্ট্র ও ইসরাইল বিরোধী বলে দাবি করে। অথচ মওদুদীর গোলাম আহমেদ কাদিয়ানির পর মওদুদী একমাত্র ব্যক্তি যার বই নিয়ে রকফেলার ফাউন্ডেশনসহ ইসরাইলি লবির দুটি বিশ্ববিদ্যালয় গবেষণা করে। মওদুদী যদি ইসলামের কথা বলতো তাহলে গবেষণা হওয়ার কথা কোরআন-হাদিস নিয়ে, মওদুদী নিয়ে নয়। তাদের সুপারিশেই আলেম ওলামাদের প্রতিবাদ সত্ত্বেও সৌদি আরব থেকে পুরস্কার পেয়েছিল। অবশ্য পরবর্তিতে মওদুদী জামাতের মুখোশ উন্মোচন করে বিভিন্ন অডিও-ভিডিও ও বই প্রকাশ করে তার প্রায়শ্চিত্ত করে সৌদি আরব।

মওদুদীর বই মদিনায় পড়ানো হয় বলে প্রচার করা হয়, অথচ তার বই শুধুমাত্র ইরানে পড়ানো হয় এবং তার কারণ খোলাফায়ে রাশেদিনের সমালোচনা করা। মওদুদীর গায়েবী জানাজা সৌদি আরবে পড়ানো হয়েছে বলে প্রচার করা হয় অথচ তার লাশ যুক্তরাষ্ট্র থেকে পাকিস্তানে আসার পর জানাজা হয়েছিল। এছাড়া যে গায়েবী জানাজার কথা বলা হয় সেটি বিদাত এবং শরীয়ত বিরোধী বলে সর্বসম্মত রায় রয়েছে। এভাবে সম্পূর্ণ মিথ্যার উপর মওদুদীকে প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

“বদল আল এয়ানত” নামে যে জাহেলি পদ্ধতি মওদুদী উদ্ভাবন করেছে তা নিয়ে বেশকিছু লেখা প্রকাশ হলেও জামাতের সদস্যরা মৌন থাকায় এ নিয়ে কেউ সরব হয়নি। মূলত জামাতের নীতি নির্ধারণী মহল এ সম্পর্কে দিক নির্দেশনা দিয়ে থাকে। ধনী নেতারা অধীনস্তদের স্ত্রী-কন্যাকে ভোগ করার লোভে, আবার অবস্থার শিকার হওয়া নেতাকর্মীরা মানসম্মানের ভয়ে মুখ খুলে না। বাংলাদেশে বদল আল এয়ানতের নামে কোন নেতা কোথায় কোথায় সন্তান জন্ম দিয়েছে তা উদ্ঘাটন করা কিছুটা কষ্টসাধ্য হলেও এটি সময়ের প্রয়োজনে সুস্থ সামাজিক পরিবেশ বজায় রাখার জন্য অতীব প্রয়োজন।

[চলবে]

লেখক: আবদুল্লাহ আরাবী, বিশিষ্ট ইসলামী চিন্তাবিদ এবং ফিকহ ও রিজাল শাস্ত্র বিশেষজ্ঞ। মদিনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অব ইসলামিক ল থেকে উচ্চশিক্ষা সমাপ্তির পর বর্তমানে তিনি জেনারেল প্রেসিডেন্সি অফ স্কলারলি রিসার্চ এন্ড ইফটা এর বাংলা বিভাগীয় কো-অর্ডিনেটর হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

এপ্রিল 8, 2018

কামাল জাফরির পরকীয়া ও চতুর্থ বিয়ে নিয়ে প্রশ্ন তোলায় মতিনকে জীবন নাশের হুমকি

পিএস এর স্ত্রীর সাথে পরকীয়ায় জড়িয়ে চতুর্থ বিয়ে করার অভিযোগ করায় পিএস আবদুল মতিনকে জীবন নাশের হুমকি দিচ্ছে টিভি উপস্থাপক ও আলেম নামধারী কামালুদ্দীন জাফরী। মতিনের স্ত্রী ও দুই সন্তানসহ মিশরের রাজধানী কায়রোতে রেখেছেন নাকি অন্য কোথাও পাঁচার করে করে দিয়েছেন এ নিয়ে প্রশ্নও তুলেছে পিএস আবদুল মতিন। এর আগেও তার বিরুদ্ধে নারী ভাগিয়ে নিয়ে পাকিস্তানের পতিতালয়ে পাচার করার অভিযোগ উঠেছিল।
এছাড়া জাফরিকে অর্থ লুটপাট ও সৌদি অর্থে প্রকাশিত কোরআনের অনুবাদে জামাতি মতাদর্শ সংযোজনের অভিযোগে সৌদি আরব থেকে বহিস্কার করা হয়।

জানা গেছে জামায়াতে ইসলামীর বহিষ্কৃত রুকন, বাংলাদেশ ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা এবং ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান কামাল উদ্দিন জাফরিকে এক সময় “কামের আগে আউট মাল কামাল” বলে ঠাট্টা করতেন গোলাম আজম ও আব্বাস আলী খানসহ জামায়া্তের সিনিয়র নেতৃবৃন্দ। কিন্তু প্রথম বিবাহের দশ বছর পর থেকে তার বিরুদ্ধে নারীঘটিত অভিযোগ আসতে শুরু করলে পুরুষত্ব পুনরুদ্ধারের গোপন রহস্য জানতে অনেকেই তার দ্বারস্থ হন। অনেকের ধারণা ধ্বজভঙ্গের পরামর্শ দিয়েই জাফরি বিভিন্ন লাভজনক পদ লাভ করেছে।

উল্লেখ্য এর আগে নিজ বাসায় ভাড়াটিয়া এক প্রবাসীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নিয়ে তৃতীয় স্ত্রী করে নেয়ার ঘটনায় নরসিংদীতে স্থানীয় পত্রিকায় শিরোনাম হয়েছিলেন কামালুদ্দীন জাফরী।
এবার নওশীন আলম (৩৩) নামে যে নারীকে জাফরী (৭৩) ভাগিয়ে নিয়ে গেছেন তিনি তারই সাবেক ব্যক্তিগত সহকারী (পিএস) এবং ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক আব্দুল মতিনের স্ত্রী। অভিযোগকারী আব্দুল মতিন বর্তমানে ইউরোপের দেশ অস্ট্রিয়ার একটি মসজিদে ইমামতি করেন।
আব্দুল মতিন তার স্ত্রী ও দুই সন্তানকে অপহরণের বিষয়ে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি সেন্ট্রাল শরিয়াহ বোর্ড ফর ইসলামি ব্যাংকস অব বাংলাদেশ এর নির্বাহী কমিটির চেয়ারম্যান ও সেক্রেটারি জেনারেলের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।
জাফরী সেন্ট্রাল শরিয়াহ বোর্ডের চেয়ারম্যান। তার নৈতিক স্খলনের তদন্ত এবং শরিয়া বোর্ড থেকে বহিষ্কারের আবেদন করা হয়েছে অভিযোগপত্রে। যেসব ব্যাংক সেন্ট্রাল শরিয়াহ বোর্ডের সদস্য তাদেরও লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন মতিন।
অভিযোগের বিষয়ে তিনি বলেন, বাংলাদেশ ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের শিক্ষক হিসেবে ২০০৭ সালে যোগ দেই। একই সঙ্গে ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা ও ট্রাস্টি বোর্ডের চেয়ারম্যান জাফরীর ব্যক্তিগত সহকারী হিসেবে নিয়োগ পাই। ২০১৩ সাল পর্যন্ত শিক্ষকতা করি। এর মধ্যে ২০১২ সালে ৬ মাসের ছুটি নিয়ে যুক্তরাজ্যে যাই। আমার অনুপস্থিতির সুযোগে আমার স্ত্রী নওশীন আলমকে সৌদি আরবের মদিনা ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ে স্কলারশিপ নিয়ে দেয়ার পাশাপাশি বিনা খরচে সৌদিতে নিয়ে যাওয়া এবং মক্কায় মুসলিম ওয়ার্ল্ড লিগে (রাবেতা আলমে ইসলামি) চাকরি দেয়ার প্রলোভন দেখিয়ে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলেন জাফরী। হাতিরঝিল এলাকায় অর্ধলক্ষ টাকা মাসিক ভাড়া বাসায় নওশীনকে নিয়ে রাতযাপন করতেন। আমার বাসা ছিল এর খুব কাছাকাছি দক্ষিণ বনশ্রীতে, যেখানে তিন সন্তানসহ আমার স্ত্রী থাকতো। অথচ কামালুদ্দিন জাফরীর তিন স্ত্রী এবং ১৪ সন্তান রয়েছে।
মতিন আরো জানান, ২০১৪ সালের নভেম্বর মাসের শেষ দিকে বাংলাদেশে আসেন। স্ত্রী-সন্তানদের অস্ট্রিয়ায় নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ইউরোপ যাওয়ার ১০ দিন আগে অর্থাৎ ২০১৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর জাফরীর এক ঘনিষ্টজন মতিনকে ফোন করে জানান, নওশীনকে জাফরী গতকাল (২৭ ডিসেম্বর) বিয়ে করেছেন। এ কথা শুনে তিনি হতবাক হয়ে যান। কারণ, জাফরী তার বাবার বয়সী। আর নওশীনের সাথে তাদের বিবাহ বিচ্ছেদও হয়নি। তাৎক্ষণিকভাবে স্ত্রীকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলে তিনি অস্বীকার করেন। এরপর ২০১৫ সালের ৭ জানুয়ারি মতিন স্ত্রী-সন্তানদের নিয়ে অস্ট্রিয়ায় ভিয়েনায় তার কর্মস্থলে চলে যান। এর আগে ২ জানুয়ারি উভয় পরিবারের উপস্থিতিতে স্বামীর অনুগত থাকা এবং জাফরীর সঙ্গে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করার শর্তে এক অঙ্গীকারনামায় স্বাক্ষর করেন নওশীন। সেই স্ট্যাম্পের কপিও দেখিয়েছেন মতিন। কিন্তু সেখানে যাওয়ার পর থেকেই প্রতিদিন নওশীনের সঙ্গে জাফরীর ফোনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কথা হতো।
মতিন দাবি করেন, কামালুদ্দিন জাফরী তাকে হত্যা করার জন্য অথবা সন্ত্রাসী অপবাদ দিয়ে ইউরোপীয় পুলিশে সোপর্দ করার জন্য নওশীনের সঙ্গে যোগসাজশ করেন।
অস্ট্রিয়া যাওয়ার এক সপ্তাহরে মাথায় জাফরীর সঙ্গে ফোনালাপের এক পর্যায়ে নওশীন বাসার ড্রয়িং রুমের জানালা খুলে চিৎকার করতে থাকে। প্রতিবেশীরা পুলিশকে ফোন করে। পুলিশ এলে নওশীন দরজা খুলে দেন এবং তাদের বলেন, তার স্বামী একজন সন্ত্রাসী, তাকে ধরে নিয়ে যান। ইউরোপের একজন ইমামকে সন্ত্রাসী বলায় পুলিশ হাসি দিয়ে, ইউরোপের আইন মেনে চলার জন্য নওশীনকে পরামর্শ দিয়ে চলে যায়।
এর ঠিক এক সপ্তাহ পর আবারও দরজা খুলে চিৎকার শুরু করেন নওশীন। এবারও প্রতিবেশীরা পুলিশে ফোন দিলে পুলিশ এসে মতিন, নওশীন এবং এক প্রতিবেশীকে থানায় নিয়ে যায়। থানায় নিয়ে পৃথক পৃথকভাবে তাদেরকে জিজ্ঞাসাবাদ করে।
পুলিশ নিশ্চিত হয়, নওশীন তার স্বামীকে হত্যা অথবা সন্ত্রাসের অপবাদ দিয়ে পুলিশে সোপর্দ করার জন্য তৃতীয় কোনো ব্যক্তির হুকুম তালিম করছে।
এই কারণে ২০১৫ সালের ২৪ জানুয়ারি দিবাগত রাত ১টায় দুই সপ্তাহের জন্য নওশীনকে গ্রেপ্তার করে ভিয়েনা পুলিশ তাকে অ্যাগ্রেসিভ নারী সেলে পাঠায়। এই সময় জাফরীর সঙ্গে কয়েকবার মোবাইলে কথা বলেন নওশীন। এছাড়া জেলে থাকা অবস্থায় কয়েকশবার তারা কথা বলেছেন। ওই কথোপকথনের কললিস্ট রের্কড অস্ট্রিয়ার টি-মোবাইল কোম্পানি থেকে সংগ্রহ করা হয়।
এদিকে জাফরী ভিয়েনায় বসবাসকারী তার আত্মীয়-স্বজনের মাধ্যমে নওশীনকে ছাড়িয়ে আনার ব্যবস্থা করে। জেল থেকে ছাড়িয়ে আনার পর ৩১ জানুয়ারি ভিয়েনা থেকে রওনা দিয়ে ১ ফেব্রুয়ারি নওশীন ছোট দুই সন্তানসহ বাংলাদেশে চলে আসেন। মতিন দাবি করেন, তাদের বিমানের টিকিটের টাকাটাও তিনি দিয়েছেন।
আব্দুল মতিন বলেন, পহেলা ফেরুয়ারি তারা দেশে ফেরে। এই কেলেঙ্কারি যাতে ফাঁস না হয়, সংবাদ মাধ্যম এবং আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নাগালের বাইরে রাখার জন্য ওই মাসের শেষের দিকে সৌদি আরবের ভিসা নিয়ে নওশীন আলমসহ দুই শিশু সন্তানকে (জাওদান ও আফনানকে) ‘অপহরণ’ করে সৌদি আরব নিয়ে যান জাফরী।
সৌদি আরবে যেসব দাতা জাকাত-সদকার বিপুল টাকা পয়সা জাফরীকে দিতেন তাদেরকে বিষয়টি অবহিত করেন মতিন। সৌদি আরবে জিনা ব্যাভিচারের শাস্তি অত্যন্ত কঠোর হওয়ায় জাফরী তাড়াহুড়া করে নওশীন ও দুই সন্তানকে বাংলাদেশে নিয়ে আসেন। এরপর তড়িঘড়ি করে ২০১৫ সালের মার্চের শেষের দিকে মিশরের রাজধানী কায়রোতে নিয়ে যান। বর্তমানে তারা কায়রোতেই আছেন। সেখানে জাফরী তার ঘনিষ্ট দুই ব্যক্তির জিম্মায় নওশীন আলমকে রেখেছেন। মাঝে মাঝে সেখানে যান জাফরী। দু’জনকে বিভিন্ন এলাকায় ঘুরতে দেখা গেছে।
কায়রোর রাস্তায় দুই শিশুকে নিয়ে হাঁটছেন নওশীন
মতিন অভিযোগ করে বলেন, জাফরীর পরামর্শে এবং ফাঁদে পড়ে নিকাহনামা জালিয়াতি করে আমার স্ত্রী, দুই শিশু সন্তানকে জাফরী বাংলাদেশ থেকে প্রথমে সৌদি এবং পরে মিশরে অপহরণ করে নিয়ে গেছেন।
জাফরীর কি আপনার স্ত্রীকে বিয়ে করে নিয়ে গেছে এই প্রশ্ন করলে আব্দুল মতিন বলেন, নওশীন এখনও আমার স্ত্রী। আমি তাকে তালাক দেইনি। স্ত্রীও আমাকে তালাক দেয়নি। তাহলে উনি কীভাবে বিয়ে করলেন? আমাদের তিন সন্তান আছে। একটি সন্তান আমার সঙ্গে অস্ট্রিয়ায় থাকে। ছোট দুই সন্তান মায়ের কাছে।
তাহলে কেন আইনের আশ্রয় নিচ্ছে না এই প্রশ্নে মতিন বলেন, কামালুদ্দিন জাফরীর বাংলাদেশের নেতানেত্রীদের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকায় তারা প্রভাব বিস্তার করতে পারে। ইতিমধ্যে আমার ভাই থানায় একটি সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করেছেন। আমি খুব দ্রুত সময়ের মধ্যে আইনের আশ্রয় নিবো।
এদিকে নাম প্রকাশ না করার শর্তে ইসলামী ব্যাংকের এক শীর্ষ কর্মকর্তা বলেছেন, কামালুদ্দিন জাফরী একজন প্রবাসীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নেয়াসহ নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ায় ওই সময় ইসলামী ব্যাংকের শরিয়া বোর্ড থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, নানা অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার কারণে জামায়াতের রুকন পদ থেকেও তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। সূত্রটি দাবি করে, যুদ্ধাপরাধের অভিযোগে যখন দেলাওয়ার হোসাইন সাঈদী আটক হন, একই সময় জাফরীও আটক হন। তবে পরে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।
এদিকে গত ২০ জানুয়ারি সরকার দলীয় এক সংসদ সদস্য অগ্রণী ব্যাংককে ‘সেন্ট্রাল শরীয়া বোর্ড’র সদস্য পদ পরিত্যাগ করার পরামর্শ দিয়ে ওই ব্যাংকের চেয়ারম্যানের কাছে চিঠি দেন। তিনি ওই চিঠিতে বলেন, জাফরী চাঞ্চল্যকর নুরুল ইসলাম ফারুকী হত্যা মামলার একজন তালিকাভুক্ত আসামি। ব্যক্তিগত সহকারীর স্ত্রীকে ফুসলিয়ে চতুর্থ স্ত্রী গ্রহণ করার মতো ভয়াবহ অভিযোগ রয়েছে তার বিরুদ্ধে। তার বাসার ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাসকারী একজন প্রবাসীর স্ত্রীকে তৃতীয় স্ত্রী হিসেবে গ্রহণ করার কারণে ইসলামী ব্যাংকের শরিয়া বোর্ডের সদস্য সচিব পদ থেকে তাকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।
এই অভিযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে, গত ৯ মার্চ অগ্রণী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেডের ১৮তম সভায় সর্বসম্মতিক্রমে সেন্ট্রাল শরিয়া বোর্ড থেকে নিজেদের সদস্য পদ প্রত্যাহার করার সিদ্ধান্ত নেয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্র দাবি করেছে, সৌদি আরব, যুক্তরাজ্য, কানাডা, যুক্তরাষ্ট্র, কুয়েত, কাতারসহ বিভিন্ন দেশ থেকে এতিম গরীবদের নামে বিপুল পরিমান যাকাত ও সদকার টাকা প্রতিমাসে পেয়ে থাকেন কামালুদ্দিন জাফরী। এর সিংহভাগই তিনি ফূর্তি করে উড়িয়ে দেন।
নরসিংদীতে জামেয়া কাসেমিয়া মাদরাসা এবং ঢাকাস্থ ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের নামে বিদেশ থেকে কোটি কোটি টাকা এনে নিজের অ্যাকাউন্ট এবং বিভিন্ন নামে ব্যাংকে রাখেন জাফরী। যার হিসাব-নিকাশ কখনোই দিতে পারেননি। এই দুই প্রতিষ্ঠানের পরিচালনা পর্ষদ এই টাকা পয়সার হিসাব চাওয়ার সাহসও পায় না।

ফেব্রুয়ারি 11, 2018

খালেদার কারাদণ্ডের পর হিজড়া দলকে আন্দোলনের দায়িত্ব দিলেন তারেক !

বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার দুর্নীতি মামলায় সাজা হওয়ার পর কোনো ধরণের প্রতিবাদ, প্রতিরোধ গড়ে না তোলায় বিএনপি ও জামায়াত-শিবিরের নেতাকর্মীদের উপর ক্ষুব্ধ তারেক রহমান হিজড়াদের সক্রিয় করার পদক্ষেপ নিয়েছেন। তিনি গতকাল মোবাইলে হিজড়া দলের চেয়ারপার্সন রাশিদা ও সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান কাজলী হিজড়াকে সরকারের বিরুদ্ধে কঠোর আন্দোলন গড়ে তোলার নির্দেশ দিয়েছেন।

জানা গেছে, হতাশ তারেক রহমান ২০১১ সালে প্রতিষ্ঠিত জাতীয়তাবাদী হিজড়া দলের নেতৃবৃন্দের সাথে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে হিজড়াদেরকে আন্দোলন ও জনমত গড়ে তোলাসহ দলে আরও পদ দেয়ার আশ্বাস দিয়েছেন হিজড়া দলের চেয়ারপার্সন রাশিদাকে।

উল্লেখ্য প্রায় চার বছর আগে তারেক রহমানের নির্দেশে বিএনপি নেতা হাবিবুন্নবী সোহেলের নেতৃত্বে বিএনপি নেতারকর্মীদের লিঙ্গ পরিবর্তন করে হিজড়া হওয়ার অনুমোদন দিয়েছিলেন বলে একটি প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছিল। গত সাত বছরে জাতীয়তাবাদী হিজড়া দলের আশুলিয়াস্থ কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে বর্তমানে চারশর বেশি হিজড়া নেতাকর্মী রয়েছে।

এদিকে বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার কারাভোগের কারণে মনোবল শক্ত রাখতে রোজা রেখেছে দলের নেতাকর্মীরা। কাজলী হিজড়া জানান, দলের চেয়ারপার্সন রাশিদার নেতৃত্বে থাকা ৬৫৮ হিজড়ার মধ্যে ৪০০ জনের মতো আজ রোজা রেখেছেন। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বকশিবাজার মোড়ে আইনজীবী, পুলিশ ও গণমাধ্যমকর্মীদের মাঝে হিজড়ারা কর্মসূচি পালন করেছে।

এদিকে, জাতীয়তাবাদী হিজড়া দলের দপ্তর সম্পাদক আবুল হিজড়া তাদের প্রেরিত প্রেস বিজ্ঞপ্তি কোনো পত্রিকায় প্রকাশিত না হওয়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা সারাদেশে খালেদার জিয়ার মুক্তির দাবিতে কঠোর আন্দোলন করে দেশ অচল করে দেয়ার হুমকি দিয়েছেন।

সেপ্টেম্বর 27, 2013

পাকিস্তানের জামাত নেতার বিরুদ্ধে ত্রিশটি ভেড়া ধর্ষণের অভিযোগ

Untitled-1 copy

জামায়াতে ইসলামী পাকিস্তানের এক নেতা ত্রিশটি ভেড়াকে ধর্ষণ করেছে। ত্রিশটি ভেড়াকে ধর্ষণের দায়ে অভিযুক্ত ঐ পাকিস্তানীকে আটক করেছে দেশটির পুলিশ। খবর সিয়াসত ডেইলি ও হাকজোর।

read more »