শীতবস্ত্র বিতরণের নামে ছাত্র শিবিরের লুটপাট, ছাত্রী সংস্থাও জড়িত।

Untitled

ছাত্রশিবিরের উদ্যোগে ১৫ জানুয়ারী থেকে শীতার্তদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ শুরু হয়েছে যা নিয়ে ব্যাপক চাদাবাজি ও লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে শীর্ষনেতারা কারাগারে থাকায় টাকার প্রয়োজনে ছাত্র শিবিরের নেতারা কোরবানীর মাংসের টাকা লুটপাট, মাদক ব্যবসা এমন কি জুতাচুরির মত নানা ধরণের অপকর্মে জড়িয়ে পড়েছে।

আর্থিক সংকটের কারণে অর্থ আত্মসাতের উদ্দেশ্যে শিবিরের কেন্দ্রীয় সেক্রেটারি জেনারেল শীতবস্ত্র বিতরণ কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। টাকা সংগ্রহের জন্য ছাত্রী সংস্থার সদস্যদের বিভিন্ন অফিসে পাঠানো হচ্ছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। টাকার ভাগাভাগি নিয়ে নিজেদের মধ্যে কোন্দলের ফলে এ লুটপাটের ঘটনা ফাঁস হয়ে গিয়েছে।

শিবির শীতবস্ত্র বিতরণের নামে তোলা চাদার টাকা লুটপাট করে যে ন্যাক্কারজনক কাজ করছে তা নিয়ে রাজশাহীসহ সর্বত্র ব্যাপকভাবে সমালোচিত হচ্ছে।

অসহায় ও গরীবদের নামে অর্থ লুটপাটের মত অপকর্মে জড়িয়ে পড়ায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে বিশিষ্ট ব্যক্তিরা।

জানা গেছে, শিবিরের সাংগঠনিক ভিত্তি আছে এমন প্রায় সব এলাকায় শীতবস্ত্র বিতরণের কর্মসূচি গ্রহণ করেছে। এই অযুহাতে সদস্য ও বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান থেকে টাকা উঠানো হচ্ছে। এছাড়াও বিভিন্ন ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে চাদা দাবি এমন কি জোরপূর্বক টাকা আদায় করেছে তারা। আবার ক্ষেত্রবিশেষে ছাত্রী সংস্থার সদস্যদের পাঠিয়ে টাকা তোলা হচ্ছে।

জানা গেছে, সংগৃহিত টাকার একটি অংশ জেলা জামায়াতের আমীরের কাছে পাঠিয়ে বাকি টাকা নিজেরা ভাগাভাগি করে নিয়েছে। টাকার সিংহভাগ সংশ্লিষ্ট সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পেয়েছে বলে জানা গেছে। এ কাজে জড়িত ছাত্রী সংস্থার সদস্যরাও ভাগ পেয়েছে।
বিপুল অংকের টাকা তুলে লোক দেখানো শীতবস্ত্র বিতরণ করে কর্মসূচি শেষ করছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। শুধুমাত্র ফটো সেশন করার জন্য স্বল্প সংখ্যক শীত বস্ত্র দান করে সম্পূর্ণ টাকা হস্তগত করছে শিবির। এর সাথে জামাতের কিছু নেতাও সক্রিয়ভাবে জড়িত হয়েছে।

রাজশাহী মহানগর ছাত্রশিবিরের সভাপতি আনিসুর রহমান, জসীম উদ্দিন, আসাদুজ্জামানসহ একটি চক্র কেন্দ্রিয় সেক্রেটারির সাথে যোগসাজসে প্রায় ৩০ থেকে ৩৫ লক্ষ টাকা উঠিয়েছে বলে জানা গেছে। দেশের অন্যান্য স্থানেও তারা এই লুটপাট করে যাচ্ছে।

শিবিরের এই কর্মকাণ্ড বিভিন্ন স্থানে তীব্র সমালোচনার সম্মুখীন হচ্ছে। শিবির কতটা ধর্ম মানে বা জানে এ প্রশ্নও তুলেছে অনেকে।

4 টি মন্তব্য to “শীতবস্ত্র বিতরণের নামে ছাত্র শিবিরের লুটপাট, ছাত্রী সংস্থাও জড়িত।”

  1. Khankir polara togo ki r kno kam naika??

    togo sob news shibir nia ken ?

    tora to taile shahabagi nastik
    sibir er choda khaoai togo kaj

    ja tor mar duder gondho ne ga ja

    naile tor mar dud kaita kutta re khaoamu . . . .sala bainchod madari chod er son jaroj malur son

    tor mare chuida voda fadai disi
    ja barit gia dek

  2. . . . Ghar jakey dekh teri ammi ki pund sey khun nikal rahi hey, jatey samay doctor ko sath lekhe jana. Teri ammi ko kal raat chuda hey maine bina condom sey, Kiya huya Cow ki walad Maluan, kaha chup

  3. মিথ্যা অভিযোগ কইরা লাভ নাই। এগুলা কথা সয়তানেও বিশ্বাস করবো না।

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: