বরিশালে ছাত্রী সংস্থার গ্রেফতারকৃত ১৩ জনের বিরুদ্ধে পতিতাবৃত্তির ও ৭ জনের বিরুদ্ধে জঙ্গী সম্পৃক্ততার অভিযোগ

বরিশালের মুলাদী উপজেলা থেকে আটক ছাত্রী সংস্থার ২২ কর্মীর মধ্যে ১৩ জনের বিরুদ্ধে পতিতাবৃত্তির ও ৭ জনের বিরুদ্ধে জঙ্গী সম্পৃক্ততার অভিযোগ পাওয়া গেছে। মুলাদির স্থানীয় জনগণের কাছে বেশ্যাবৃত্তির অভিযোগে অভিযুক্ত ১৩ জনের ৯ জন পেশাদার পতিতা হিসেবে চিহ্নিত।

একটি সূত্র জানিয়েছে ছাত্রী সংস্থার সদ্য গঠিত সুইসাইড স্কোয়াডের সদস্যও রয়েছে আটককৃতদের মধ্যে। উল্লেখ্য আত্মঘাতি হামলা চালাতে আল কায়েদার নয়া আবিষ্কৃত স্তনে অস্ত্রপাচার করে বোমা প্রতিস্থাপনের উপায় জামায়াতে ইসলামী ও তার সাথে সম্পৃক্ত জঙ্গী সংগঠনগুলোর হস্তগত হয়েছে বলে গোয়েন্দাদের কাছে তথ্য রয়েছে।

জানা গেছে মুলাদির গাছুয়া ইউনিয়ন জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি মাস্টার আতাহার উদ্দিনের বিরুদ্ধে দীর্ঘদিন যাবত দেহব্যবসা পরিচালনার অভিযোগ রয়েছে। এলাকাবাসী বহুবার অভিযোগ জানালেও এতদিন যাবত কোন ব্যবস্থা গৃহিত হয়নি। সম্প্রতি গোয়েন্দাসূত্রে জঙ্গী সম্পৃক্ততার তথ্য জানা গেলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের নির্দেশে বুধবার বেলা একটায় আতাহারের হোসনাবাদ গ্রামের বাড়িতে অভিযান চালিয়ে ২২ জন নারী কর্মীদের ও ৪ জন কাস্টমার আটক করা হয়।

(ওসি) মো. শাহ আলম জানান, পুলিশী অভিযানের সময় আতাহারসহ কয়েকজন গ্রাহক ও নারী পালিয়ে যায়। তিনি বলেন, আটককৃতদের ৯ জন স্থানীয়ভাবে চিহ্নিত পেশাদার পতিতা।

আটককৃতদের বয়স ১৮ থেকে ৩০ বছর। আতাহার এই বয়সী নারীদের নিয়েই সংগঠনের নামে দেহব্যবসা পরিচালনা করে আসছে। ৭ জনকে জঙ্গী তৎপরতায় যুক্ত বলে সন্দেহ করা হচ্ছে। আটককৃতদের একজন দেহব্যবসার কথা স্বীকার করেছে।

আটক নারীদের কাছ থেকে বিভিন্ন ধরনের প্রামাণ্যচিত্র, পর্নো ভিডিও, যৌন উত্তেজক ঔষধ ও মওদুদী, গোলাম আযম, নিজামীর লেখা ৩৩টি বই ও ৩টি জেহাদি বই উদ্ধার করা হয়েছে। তন্মধ্যে একটি বই আত্মঘাতি হামলা সম্পর্কিত।

বরিশালের পুলিশ সুপার এ কে এম এহসানউল্লাহ বলেন, ঝালকাঠি ও বরগুনার পর বরিশালের মুলাদী এলাকায় জঙ্গি তৎপরতা বৃদ্ধির তথ্য পাওয়া গেছে। বিষয়টি গুরুত্ব সহকারে দেখা হচ্ছে।

আটককৃতরা হলেন মরাজানা, রেনু, স্বর্ণালী হামিদা, রাফসানা, রোকেয়া, রাজিয়া, আফরোজা, সুমি, করুনা, রুনা, আফসানা, নিরু, আফিয়া, নুপুর, জাহানারা, সিমু, এলিজা, কানিজ, তানিয়া, তাহমিনা, সুবর্না ও আয়শা। মরাজানা, রোকেয়া, নুপুর, এলিজা ও তানিয়া চিহ্নিত পতিতা। তাছাড়া স্বর্ণালী ছাত্রী সংস্থার সদস্য সংগ্রহের কাজ করলেও মক্ষিরানী ও পতিতা-সর্দার হিসেবে ইতিপূর্বে দুই বার গ্রেফতার হয়েছে।

এদিকে, মুলাদী উপজেলায় ইসলামী ছাত্রী সংস্থার নেতাকর্মীদের আটকের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে তাদের মুক্তির দাবি করেছে বরিশাল জেলা ও মহানগর জামায়াত।

আটককৃত নারীরা ঈদ পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার কথা বললেও আটককৃতরা কিংবা জামায়াত নেতারা আতাহারসহ কয়েকজন গ্রাহকের পালিয়ে যাওয়া, পর্নো সিডি ও বই এবং জঙ্গি বই সম্পর্কে সদুত্তর দিতে পারে নি।

One Comment to “বরিশালে ছাত্রী সংস্থার গ্রেফতারকৃত ১৩ জনের বিরুদ্ধে পতিতাবৃত্তির ও ৭ জনের বিরুদ্ধে জঙ্গী সম্পৃক্ততার অভিযোগ”

  1. জামাতে ইসলামিদের চরিএ এতোই খারাপ ? তাদের শরিয়তে এটা কি জায়েয?

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: