“স্বামী ভাড়া” ব্যবসার উদ্যোক্তা গ্রামীণ ব্যাংক!

নিজস্ব প্রতিবেদক: আশ্চর্য শোনালেও সত্যি যে রাজধানীতে ভাড়ায় স্বামী বাণিজ্য চলছে! অনেকে ভাড়াটে স্বামী হওয়া পেশা হিসেবে নিয়েছেন। আরও আশ্চর্যের বিষয় হল গ্রামীণ ব্যাংক শুধু ক্ষুদ্র ঋণ নয় স্বামী বাণিজ্যেরও উদ্যোক্তা। গ্রামীণ ব্যাংকের অনেক শাখার কর্মকর্তা-কর্মচারীরা স্বামী ভাড়া করায় দুতিয়ালীর ভূমিকা পালন করে।

ভাড়ায় স্বামী বাণিজ্যের সূচনা হয় ক্ষুদ্র ঋণ নিতে স্বামী-স্ত্রীর ছবি প্রয়োজন এই শর্তের কারণে। পরবর্তীতে যৌন ব্যবসা সহ বহু ক্ষেত্রে উপযোগিতা থাকায় পেশা হিসেবে গড়ে ওঠে ভাড়াটে স্বামীর ব্যবসা। গ্রামীণ ব্যাংক ছাড়াও স্বামী ভাড়া করার দালালরা এখন বিভিন্ন ক্ষুদ্র ঋণদাতা এনজিও, হোটেল ও পাসপোর্ট অফিসসহ বিভিন্ন স্থানে সক্রিয় রয়েছে। রাজধানীর জুরাইন এলাকার সড়ক পাশের খুদে দোকানি রহিমা বেগমের স্বামী নেই। মাস কয়েক আগে এনজিও’র ঋণ পেতে একজন স্বামী ভাড়া করেছিলেন তিনি। ঋণের টাকা থেকে ৫শ’ টাকা দিয়েছেন তাকে। মাত্র ৫শ’ টাকাতেই আলো বেগমের সঙ্গে স্বামী পরিচয়ে এনজিও অফিসে গিয়ে ছবি তুলে ঋণ পেতে সহায়তা করেছে বিশু নামের এক লোক। এনজিও’র লোকেরা বলেছে ঋণ পেতে হলে স্বামী-স্ত্রী দু’জনের ছবি লাগবে, এক সঙ্গে না হলে ঋণ পাওয়া যাবে না।
পেশাদার স্বামী হিসেবে ভাড়ায় খাটা কয়েকজনের খোঁজ পাওয়া গেছে অনুসন্ধান কালে। দিনে ২শ’ টাকা থেকে মাসে পাঁচ হাজার টাকায় ভাড়ায় স্বামী পাওয়া যায়। অবস্থা ভেদে ভাড়ার টাকার হেরফের ঘটে। একই পুরুষ একাধিক নারীর স্বামী পরিচয়েও ভাড়ায় খাটেন। জামালপুরের মধ্যবয়সী পুরুষ সালাউদ্দিন। ঢাকার মিরপুরে পান-সিগারেটের ব্যবসা করতেন। এক সন্ত্রাসী চক্রের সঙ্গে জড়িয়ে জেলও খাটে দেড় বছর। জেল থেকে বেরুনোর পর পরিচয় হয় এক মহিলার সঙ্গে। সেই থেকে ভাড়ায় স্বামী বাণিজ্য শুরু সালাউদ্দিনের। এখন রাজধানীর মিরপুর, বাড্ডা ও গাবতলী এলাকায় ৬টি বাসায় ৬ নারীর ভাড়াটে স্বামী সে। ভাড়া পায় ৩০ হাজার টাকা। ভাড়ায় স্বামী খাটাই এখন তার একমাত্র পেশা বলে জানায় সে।

অনুসন্ধানে রাজধানীতে তিন ধরনের কাজের জন্য মহিলাদের স্বামী পরিচয়ে পুরুষ ভাড়া করার ক্ষেত্র চিহ্নিত করা গেছে। বিশেষ করে যৌন ব্যবসার সঙ্গে জড়িত নারীরা বাসা ভাড়া নেয়ার সময় স্বামী হিসেবে লোক ভাড়া করে বাড়ির মালিককে দেখিয়ে থাকে। এনজিও সহ বেশকিছু মাল্টি পারপাস কোম্পানি থেকে ক্ষুদ্র ঋণ নেয়ার শর্ত হিসেবে স্বামীর পরিচয় ও তার ছবি ব্যবহার করতে স্বামী ভাড়া করে। এছাড়া, সামপ্রতিক কালে পাসপোর্ট অফিসে কোন মহিলা স্বামী ছাড়া একা গেলে তাকে স্বামীর উপস্থিতি দেখানোর প্রয়োজনে স্বামী ভাড়া করে দেখিয়ে আবার স্বামী নিয়ে আসার ঝামেলা থেকে মুক্ত হতে হয়।
ঢাকার বিভিন্ন আবাসিক হোটেলগুলোতে যৌনকর্মীদের আনাগোনা বন্ধ হয়ে যাওয়ার পর ওই সব যৌনকর্মী এখন রাজধানীর বিভিন্ন এলাকার ফ্ল্যাট বাড়ি ভাড়া নিয়ে দেহ ব্যবসা শুরু করেছে। বাড়ি ভাড়া নিতে গেলে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে স্বামী ছাড়া বাড়ির মালিক বাসা ভাড়া দিতে চায় না। বাড়ি ভাড়া নেয়ার ওই প্রতিবন্ধকতার কথা চিন্তা করে যৌন কর্মীরা তাদের পূর্ব পরিচিত কোন পুরুষকে স্বামী হিসেবে ভাড়া করে। বাড়ি ভাড়া করার সময় সঙ্গে থাকে ভাড়াটে স্বামী। দেখা গেছে, বাড়ি ভাড়া নেয়ার সময় বাড়ির মালিককে বলা হয় স্বামী নিয়মিত ঢাকায় থাকে না, বাইরের কোন জেলায় চাকরি বা ব্যবসা করে। একই সঙ্গে বলা হয় বাসায় নিয়মিত থাকবে তার স্ত্রী ও দুই বা তিন বোন। ওই বোনদের থাকার কথা বলে জায়েজ করে নেয়া হয় আরও দু’-তিনজন যৌন কর্মীকে। এভাবেই রাজধানী শহর জুড়ে ফ্ল্যাট বাড়িগুলোতে চলছে যৌন বাণিজ্য। অনুসন্ধানে পাওয়া গেছে একই ব্যক্তির তিন-চারটে ফ্ল্যাট বাড়িতে স্বামীর পরিচয়ে ভাড়া খাটার বিষয়টি। সর্বোচ্চ পাওয়া গেছে সালাউদ্দিন নামের এক লোককে। ৬ নারীর স্বামী হিসেবে ভাড়া খাটে। ভাড়া খাটার শর্ত হচ্ছে সপ্তাহে কমপক্ষে একদিন স্বামী পরিচয়ে বাসায় অবস্থান করতে হবে, আর বাসার বাজারও করে দিতে হবে। বাসায় অবস্থান করা ও বাজার করার শর্ত দেয়ার মানে হচ্ছে যাতে আশপাশের লোকেরা কোন প্রকার সন্দেহ না করে। ওই সব যৌনকর্মীদের ক্ষেত্রে স্বামীর ভাড়া সবচেয়ে বেশি। ব্যক্তিগত অনুসন্ধানে যৌনকর্মীদের স্বামী হিসেবে ভাড়ায় খাটা চারজনের সঙ্গে আলাপকালে জানা গেছে, মাসে তাদের কারও ভাড়াই পাঁচ হাজারের নিচে নয়, এর চেয়ে বেশিও আছে। আবার ভাড়াটে স্বামীরা তাদের বন্ধু পরিচয়ে কোন খদ্দেরকে বাসায় নিয়ে গেলে সেখান থেকে কমিশনও পায়।
রাজধানীতে বিভিন্ন ক্ষুদে ব্যবসার সঙ্গে জড়িত বেশির ভাগ বস্তিবাসী বা ভাসমান নারীরা উদয়াস্ত পরিশ্রম করে সন্তানদের নিয়ে জীবন ধারণ করছে। তাদের বেশির ভাগই স্বামী পরিত্যক্তা। ব্যবসা পরিচালনা বা সমপ্রসারণের কারণে কখনও কখনও এদের ক্ষুদ্র ঋণের প্রয়োজন হয়, কিন্তু বেশির ভাগ ক্ষেত্রে এনজিওগুলো বা নগরীতে সুদের ব্যবসা করে এমন সংস্থাগুলো ক্ষুদ্র ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে স্বামী-স্ত্রী দু’জনের ছবি ও নাম ব্যবহার করে, দু’জনকেই ঋণের দায়বদ্ধ করে। এনজিও গুলোর ওই নিয়মের কারণে স্বামী পরিত্যক্তদের ক্ষুদ্র ঋণ পাওয়ার সুযোগ থাকে না। সে ক্ষেত্রে বাধ্য হয়ে পরিচিত এবং ভাল সম্পর্ক আছে এমন কাউকে স্বামী হিসেবে ভাড়া করে সংস্থাগুলো থেকে ব্যবসার ঋণ পায় মহিলারা। বিনিময়ে ভাড়াটে স্বামীকে ধরিয়ে দিতে হয় নগদ কিছু।

অনুসন্ধানে দেখা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে আগারগাঁও পাসপোর্ট অফিসে পাসপোর্টের জন্য ছবি তুলতে অফিসে যেতে হয়। অজ্ঞতাপ্রসূত কোন নারী একা পাসপোর্টের ছবি তুলতে গেলে তাকে স্বামী সঙ্গে রাখার কথা বলা হয়, সে ক্ষেত্রে মহিলা পাসপোর্ট প্রত্যাশীকে সময় ব্যয় করে আরেক দিন আসতে হয়, অনেকে ফিরে যান। মহিলারা ফিরে যাওয়ার সময় এখানকার কিছু দালাল সুকৌশলে মহিলাদের প্রস্তাব দেন, টাকা-পয়সা খরচ করে আবার আসবেন তার চেয়ে মাত্র ১শ’ টাকা খরচ করুন- আমি একজন লোক দিচ্ছি উনি আপনার সঙ্গে যাবেন, মাত্র কয়েক মিনিটের জন্য উনাকে স্বামী পরিচয় দেবেন, ছবিটা তোলা হলে চলে যাবেন। নানা বয়সী নারীদের জন্য কয়েক মিনিট ভাড়ায় খাটতে নানা বয়সী পুরুষ পাসপোর্ট অফিসের আশপাশে জড়ো করা আছে এখানকার কুদ্দুস নামের এক দালালের।

এভাবেই রাজধানীতে চলছে স্বামী ভাড়া বাণিজ্য। গ্রামীণ ব্যাংকের সাথে এ ব্যাপারে যোগাযোগ করা হলে তারা এ অভিযোগ ভিত্তিহীন ও অপপ্রচার বলে জানান।

One Comment to ““স্বামী ভাড়া” ব্যবসার উদ্যোক্তা গ্রামীণ ব্যাংক!”

  1. ড. ইউনুসের Bank ও ভালো কাজে জরিয়েছে। বাহ ভালোতো ভালো না!…..

মন্তব্য করুন

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  পরিবর্তন )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  পরিবর্তন )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  পরিবর্তন )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  পরিবর্তন )

Connecting to %s

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: